ঢাকা,  শনিবার  ০২ মার্চ ২০২৪

নিউজ জার্নাল ২৪ :: News Journal 24

১৩০ আসনে ২৮৬ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল

নিউজজার্নাল২৪ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০:২৯, ৪ ডিসেম্বর ২০২৩

১৩০ আসনে ২৮৬ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে রোববার দেশের ৪১ জেলার ১৩০টি আসনে ২৮৬ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। হলফনামায় তথ্য গোপন, ঋণখেলাপি, ১ শতাংশ ভোটারের স্বার তালিকায় ভুয়া স্বাক্ষর ও মৃত ব্যক্তির স্বারসহ নানা ত্রুটির কারণে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়।

বাতিল হওয়া মনোনয়নপত্রের মধ্যে তিনজন বর্তমান এমপিসহ বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট প্রার্থীও রয়েছেন। এদের মধ্যে রয়েছেন-কক্সবাজারে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সালাহউদ্দীন আহমেদ, ঝালকাঠিতে এমপি বজলুল হক হারুন, নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এমপি মামুনুর রশিদ কিরন ও এমপি মেজর (অব.) আবদুল মান্নান, মুন্সীগঞ্জে মাহী বি চৌধুরী, কিশোরগঞ্জে মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, রাজশাহীতে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি ও বগুড়ায় হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন আসনে ৪১ প্রার্থীর মনোনয়ন স্থগিত করা হয়েছে। ৩০ নভেম্বর শেষ হয়েছে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়। নির্বাচনে ২ হাজার ৭১৩ জন ৩০০ আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এরমধ্যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থী ১ হাজার ৯৬৬ এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ৭৪৭ জন। এ নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি ও তাদের সমমনা রাজনৈতিক দলগুলো।

ঝালকাঠি : ঝালকাঠি-১ নৌকার আলোচিত প্রার্থী বিএনপির সাবেক নেতা মেজর (অব.) শাহজাহান ওমরের মনোনয়নপত্র বৈধ হয়েছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেও শেষ পর্যন্ত দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় বাতিল হয়েছে বর্তমান সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুনের মনোনয়নপত্র। হারুনসহ জেলার দুটি আসনে ৭ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। অন্যরা হলেন-ঝালকাঠি-১ আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী এম মনিরুজ্জামান মনির, জাতীয় পার্টির এজাজুল হক, স্বতন্ত্র ইসমাইল হোসেন, নুরুল আলম, ব্যারিস্টার আবুল কাশেম মো. ফকরুল ইসলাম। ঝালকাঠি-২ আসনে জাতীয় পার্টির নাসির উদ্দীন ইমরান।

কিশোরগঞ্জ : কিশোরগঞ্জ-২ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বহিষ্কৃত বিএনপি নেতা মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান রঞ্জনের মনোনয়নপত্র বাতিল। হলফনামায় তথ্য গোপনসহ নানা ত্রুটির কারণে তার মনোনয়ন বাতিল হয়। এ আসনে আরও দুজনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। তারা হলেন-আশরাফ আলী (গণতন্ত্রী পার্টি) ও আহসান উল­াহ (তৃণমূল বিএনপি)। কিশোরগঞ্জ-১-এ স্বতন্ত্র মেজর (অব.) জেনারেল সৈয়দ শাফায়াতুল ইসলাম, শরীফ আহাম্মদ সাদী ও আবুল কাশেমের মনোনয়নপত্র বাতিল।

চট্টগ্রাম : জেলার ৮ আসনে ১৮ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল। চট্টগ্রাম-১ স্বতন্ত্র মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, চট্টগ্রাম-২ স্বতন্ত্র গোলাম নওশের আলী, মোহাম্মদ শাহজাহান ও রিয়াজ উদ্দিন, চট্টগ্রাম-৩ জাকের পার্টির নিজাম উদ্দিন নাছির ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের আমিন রসূল, চট্টগ্রাম-৪ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, মোহাম্মদ ইমরান, দিদারুল আলম ও বিএনএফ’র আখতার হোসেন, চট্টগ্রাম-৫ নাছির হায়দার চৌধুরী ও মোহাম্মদ শাহজাহান, চট্টগ্রাম-৬ স্বতন্ত্র শফিউল আজম, চট্টগ্রাম-৮ মঞ্জুর হোসেন বাদল, স্বতন্ত্র আবদুচ ছালাম, আরশেদুল আলম বাচ্চু, বিজয় কুমার, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মহিবুর রহমান বুলবুল।

কক্সবাজার : ঋণখেলাপি হওয়ায় কক্সবাজার-১-এ আওয়ামী লীগের প্রার্থী সালাহউদ্দীন আহমেদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এখানে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের মনোনয়নপত্র বৈধ হয়েছে। এ আসনে আরও ৪ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। অন্যরা হলেন-স্বতন্ত্র শফিকুল ইসলাম, কমর উদ্দিন আরমান, শামসুদ্দিন মুহাম্মদ ইলিয়াছ ও শাহনেওয়াজ চৌধুরী।

মুন্সীগঞ্জ ও শ্রীনগর : ঋণখেলাপির অভিযোগে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রার্থী মাহী বি চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এছাড়া জেলার ৩টি আসনে আরও ৭ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। অন্যরা হলেন-মুন্সীগঞ্জ-১ স্বতন্ত্র গোলাম সারোয়ার কবির ও বিএনএফের মো. ফরিদ হোসেন, মুন্সীগঞ্জ-২ স্বতন্ত্র অ্যাডভোকেট সোহানা তাহমিনা, নূরে আলম সিদ্দীক (মুক্তিজোট), মো. বাচ্চু শেখ (বিএনএফ) ও বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থী কামাল খান, মুন্সীগঞ্জ-৩ বিএনএফের মমতাজ সুলতানা আহমেদ।

বগুড়া : বগুড়া-৪-এ গণঅধিকার পার্টির প্রার্থী আলোচিত ইউটিউবার আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। হলফনামাসহ আনুষঙ্গিক কাগজপত্রে স্বার না করাসহ নানা ত্রুটির কারণে তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। বগুড়া-৩ এ নৌকার সিরাজুল ইসলাম খান রাজুর মনোনয়ন বৈধ হয়েছে। তবে তার ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী খান মুহাম্মদ সাইফুল­াহ আল মেহেদীর মনোনয়ন বাতিল।

খুলনা : জেলার তিন আসনে ১৮ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল। এরা হলেন-খুলনা-৪-এ স্বতন্ত্র প্রার্থী জুয়েল রানা, আতিকুর রহমান, রেজভী আলম, এইচএম রওশন জামির ও মোর্ত্তজা রশিদী দারা, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মনিরা সুলতানা, ইসলামী ঐক্যজোটের রিয়াজ উদ্দিন খান, তৃণমূল বিএনপির শেখ হাবিবুর রহমান, খুলনা-৫ স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ আকরাম হোসেন, ইসলামী ঐক্যজোটের তরিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ কংগ্রেসের এসএমএস জলিল ও জাপার শাহিদ আলম, খুলনা-৬-এ স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম রাজু, গাজী মোস্তফা কামাল, জিএম মাহবুবুল আলম ও মোস্তফা কামাল জাহাঙ্গীর, ওয়াহিদুজ্জামান মোড়ল ও জাতীয় পার্টির শফিকুল ইসলাম মধুর।

পটুয়াখালী : জেলার ৪টি আসনে ১৪ জনের মনোনয়নপত্র স্থগিত এবং ৪ জনের বাতিল করা হয়েছে। বাতিলরা হলেন-পটুয়াখালী-১-এ বাংলাদেশ কংগ্রেসের নাসির উদ্দীন তালুকদার ও জাকের পার্টির মো. মিজানুর রহমান বাবুলের, পটুয়াখালী ২-এ স্বতন্ত্র প্রার্থী নূর মোহাম্মদ ও পটুয়াখালী ৪-এ স্বতন্ত্র প্রার্থী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) হাবিবুর রহমান।

লালমনিরহাট : জেলার ৩ আসনে ৮ জনের বাতিল এবং ১ জনের স্থগিত হয়েছে। বাতিলরা হলেন-লালমনিরহাট-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমান প্রধান, কেএম আমজাদ হোসেন তাজু ও আব্দুল বাকি। লালমনিরহাট-২ স্বতন্ত্র হালিমা খাতুন ও রবীন্দ্রনাথ বর্মণ, জাকের পার্টির রজব আলী, বাংলাদেশ কংগ্রেসের দেলাব্বর হোসেন। গণতন্ত্রী পার্টির সুবৃত্তি রানীর মনোনয়নপত্র স্থগিত। লালমনিরহাট-৩ স্বতন্ত্র জাবেদ হোসেন বক্করের বাতিল।

কুড়িগ্রাম, রৌমারী ও চিলমারী : জেলার ৪ আসনে ১৪ জনের বাতিল। এরা হলেন-কুড়িগ্রাম-১ স্বতন্ত্র মো. আতিকুর রহমান, কুড়িগ্রাম-২ স্বতন্ত্র মো. আবু সুফিয়ান, মো. নাজমুল হুদা, মো. শফিউজ্জামান, ডা. হামিদুল হক খন্দকার, মোছা. শেফালী বেগম (বিএসপি), মো. মশিউর রহমান (জাকের পার্টি)। কুড়িগ্রাম-৪ স্বতন্ত্র শাহ মো. নুর-ই শাহী, জোবাইদুল ইসলাম বাদল, ফারুকুল ইসলাম, মো. মাছুম ইকবাল, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মোহাম্মদ আবু শামিম হাবীব, তৃণমূল বিএনপির আতিকুর রহমান, বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির আব্দুল হামিদ।

যশোর : জেলার ৬টি আসনে ১৮ জনের বাতিল। এরা হলেন-যশোর-১ স্বতন্ত্র নাজমুল হাসান ও সোহরাব হোসেন, জাতীয় পার্টির আক্তারুজ্জামান। যশোর-২ স্বতন্ত্র এসএম হাবিবুর রহমান, বিএনএফ’র প্রার্থী শামছুল হক। যশোর-৩ বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মোহাম্মদ তৌহিদুজ্জামান, তৃণমূল বিএনপির মো. কামরুজ্জামান, জাকের পার্টির মহিদুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহিত কুমার নাথ ও শহিদুল ইসলাম মিলন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের প্রার্থী শেখ নুরুজ্জামান। যশোর-৪ স্বতন্ত্র সন্তোষ কুমার অধিকারী, যশোর-৫ স্বতন্ত্র আমজাদ হোসেন লাভলু, হুমায়ুন সুলতান, কামরুল হাসান বারী, জাকের পার্টির হাবিবুর রহমান, যশোর-৬ স্বতন্ত্র আজিজুর ইসলাম ও হোসাইন মোহাম্মদ ইসলাম।

রাজশাহী ও বাঘা : রাজশাহীর ৬ আসনে ১৭ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল। এরা হলেন-রাজশাহী-১ স্বতন্ত্র চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া ওরফে মাহিয়া মাহি, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের স্ত্রী আয়েশা আখতার ডালিয়া, মো. আখতারুজ্জামান ও গোলাম রাব্বানী। রাজশাহী-২ স্বতন্ত্র শফিকুর রহমান বাদশা, রেজাউন নবী আল মামুন, আবু রায়হান মাসুদ ও মো. শাহাবুদ্দিন, গণফ্রন্টের মো. মনিরুজ্জামান। স্বতন্ত্র নিপু হোসেন ও মো. শাহাবুদ্দিন। রাজশাহী-৪ স্বতন্ত্র বাবুল হোসেন। রাজশাহী-৫ স্বতন্ত্র আহসানুল হক মাসুদ ও ওবায়দুর রহমান। রাজশাহী-৬ স্বতন্ত্র খাইরুল ইসলাম ও ইসরাফিল ইসলাম।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ স্বতন্ত্র সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও শফিকুল ইসলাম এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ স্বতন্ত্র ডা. গোলাম রাব্বানি, জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল ও এনপিপির নাহিদ আহমেদ।

নেত্রকোনা : জেলার ৫ আসনে ১৩ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল। এরা হলেন-নেত্রকোনা-১ জাকের পার্টির মো. ছমির উদ্দিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী আফতাব উদ্দিন, নেত্রকোনা-২ ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আমজাদ হোসেন ঠাকুর, স্বতন্ত্র প্রার্থী সুব্রত চন্দ্র সরকার, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আজাহারুল ইসলাম খান এবং নেত্রকোনা-৩ আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মতিন, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আসাদুজ্জামান খান ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের রিগ্যান আহমেদ। নেত্রকোনা-৪ আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী শফি আহমেদ, তৃণমূল বিএনপি থেকে মো. আল মামুন। নেত্রকোনা-৫ স্বতন্ত্র জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি মো. আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মিজবাহুজ্জামান চন্দন ও মো. মাজহারুল ইসলাম সোহেল ফকির।

টাঙ্গাইল : জেলার ৮টি আসনে ১২ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল। এরা হলেন-টাঙ্গাইল-২ স্বতন্ত্র ইউনুস ইসলাম তালুকদার ঠান্ডু, টাঙ্গাইল-৩ স্বতন্ত্র ফরিদা রহমান খান ও টাঙ্গাইল-৪ জাসদ (ইনু) প্রার্থী এসএম আবু মোস্তফা, টাঙ্গাইল-৫ (সদর) বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্র খন্দকার আহসান হাবীব ও মেহেনিগার হোসেন, টাঙ্গাইল-৬ স্বতন্ত্র জাকিরুল ইসলাম উইলিয়াম, কাজী এটিএম আনিসুর রহমান বুলবুল, মো. আব্দুল হাফেজ বিলাস, সৈয়দ মাহমুদুল ইলাহ, বিএনএমের খন্দকার ওয়াহিদ মুরাদ ও স্বতন্ত্র তারেক শামস খান, টাঙ্গাইল-৭ স্বতন্ত্র রাফিউর রহমান ইউসুফজাই।

সিলেট ও ওসমানীনগর : জেলার ৬টি আসনে ১১ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল। এরা হলেন-সিলেট-১ আবদুল বাছিত ইউসুফ আহমদ। সিলেট-২ গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি মোকাব্বির খান এবং মুহিবুর রহমান, মো. আবদুর রব, আবুল কালাম আজাদ, মো. জহির, ইকবাল হোসেন ও মোশাহিদ আলী। সিলেট-৩ স্বতন্ত্র বিএমএ’র মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল, মো. ফখরুল ইসলাম, ইসলামী ঐক্যজোটের মো. মইনুল ইসলাম।

ময়মনসিংহ : জেলার ১১টি আসনে ২৪ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল। এরা হলেন-ময়মনসিংহ-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক আহমেদ খান, ময়মনসিংহ-২ আসনে মোহাম্মদ আবু বক্কর ছিদ্দিক, ময়মনসিংহ-৩ আসনে একেএম আবদুর রফিক, মোশাররফ হোসেন আজাদ, ময়মনসিংহ-৫ আসনে বদর উদ্দিন আহমেদ, মো. নজরুল ইসলাম, মো. ফয়জুর রহমান, ময়মনসিংহ-৬ আসনে ডা. খন্দকার রফিকুল ইসলাম, মো. আবদুল মান্নান আকন্দ, মো. জাহাঙ্গীর আলম খান ও সেলিমা বেগম, ময়মনসিংহ-৭ স্বতন্ত্র প্রার্থী বাবুল আহমেদ, আবুল মনসুর, মো. হাবিবুর রহমান খান ও মুক্তি জোট মো. বাদশা দেওয়ান, ময়মনসিংহ-৮ স্বতন্ত্র মো. খিজির হায়াত খান, কানিজ ফাতেমা ও একেএম ওয়াহিদুজ্জামান, ময়মনসিংহ-১০ স্বতন্ত্র কায়সার আহমদ ও মোহাম্মদ আবুল হোসেন এবং ময়মনসিংহ-১১ স্বতন্ত্র মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ, মো. আ. রহমান ফকির, তরিকত ফেডারেশন মো. কায়কোবাদ হোসেন ও বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি এবিএম জিয়া উদ্দিন।

রংপুর : রংপুর-৬ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম, তৃণমূল বিএনপির ইকবাল হোসেন, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মাহবুল আলম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী তাকিয়া জাহান চৌধুরীর মনোনয়ন বাতিল।

পিরোজপুর : জেলার ৩টি আসনে ১০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল। এরা হলেন-পিরোজপুর-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী খান মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ও জিয়াউল আহসান গাজী, তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী ইয়ার হোসেন রিপন ও বাংলাদেশ কংগ্রেস প্রার্থী শাহ আলম। পিরোজপুর-২ জাতীয় পার্টির মো. খলিলুর রহমান, পিরোজপুর-৩ বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের প্রার্থী আব্দুল লতীফ সিরাজী, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী প্রশান্ত কুমার হাওলাদার খোকন, স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু তারেক মৃধা ও সুধীর রঞ্জন বিশ্বাস এবং বাংলাদেশ কল্যাণ পাটির প্রার্থী মো. শহীদুল ইসলাম স্বপন।

সুনামগঞ্জ : জেলার ৫টি আসনে ৭ জনের মনোনয়ন বাতিল। এরা হলেন-সুনামগঞ্জের ২ স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান, সুনামগঞ্জ-৩ স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহফুজুর রহমান, সুনামগঞ্জ ৪ মোবারক হোসেন ও সুপ্রিম পার্টির আবুল ফজল মাসউদ। সুনামগঞ্জ-৫ স্বতন্ত্র প্রার্থী মনির উদ্দিন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের আব্দুল জলিল ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের সাচ্চু বিশ্বাস।

পাবনা : ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত খেলাপি ঋণের কারণে পাবনা-২ আসনে বিএনএম-এর কণ্ঠশিল্পী ডলি সায়ন্তনীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

দিনাজপুর : দিনাজপুর-১ আসনে স্বতন্ত্র মো. আবু হুসাইন বিপু, দিনাজপুর-৩ (সদর) আসনে স্বতন্ত্র রাশেদ পারভেজ, দিনাজপুর-৫ আসনে স্বতন্ত্র মো. তোজাম্মেল হক ও দিনাজপুর-৬ আসনে স্বতন্ত্র মো. শাহনেওয়াজ ফিরোজ শাহ শুভর মনোনয়ন বাতিল।

গাজীপুর : গাজীপুর-১ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাবেক সচিব এমএম নিয়াজ উদ্দিনের প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে।

ল²ীপুর ও রামগঞ্জ : জেলার দুই আসনে সাতজনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। তারা হলেন-ল²ীপুর-১ (রামগঞ্জ) কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান পবন, তরিকত ফেডারেশনের মো. শাহজালাল, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মোশাররফ হোসেন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ফারুক হোসেন। তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী এমএ আউয়ালের মনোনয়নপত্র স্থগিত রাখা হয়েছে। ল²ীপুর-২ (রায়পুর ও সদরের একাংশ) এ স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ-সদস্য কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলের স্ত্রী সংরতি নারী সংসদ-সদস্য সেলিনা ইসলাম, আমরা ক’জন মুজিব সেনার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এএফ জসিম উদ্দিন আহমেদ ও ফরহাদ মিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

শেরপুর : জেলার দুই আসনে তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন-শেরপুর-১ (সদর) জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. ইলিয়াছ উদ্দিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোখলেসুর রহমান আকন্দ ও শেরপুর-২ (নালিতাবাড়ী-নকলা) তৃণমূল বিএনপির মো. জায়েদুর রশীদ।

খাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়ি আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী সমীর দত্ত চাকমার মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

গোপালগঞ্জ : দুজনের মনোনয়নপত্র বাতিল ও একজনের স্থগিত। গোপালগঞ্জ-২ আসনে জাসদের মো. ফুল মিয়া ও জাতীয় পার্টির ওমর খৈয়ম নয়নের মনোনয়নপত্র বাতিল ও জাকের পার্টির মো. সাজ্জাদ হোসেন মিয়ার মনোনয়ন স্থগিত করা হয়।

বরগুনা : দুটি আসনে চারজনের মনোনয়নপত্র বাতিল ও একজনের স্থগিত করা হয়েছে। তারা হলেন-বরগুনা-১ স্বতন্ত্র পার্থী মো. খলিলুর রহমান, মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম, বরগুনা-২ বাংলাদেশ কংগ্রেস আবদুল রাজ্জাক ও স্বতন্ত্র মো. রফিকুল ইসলাম। জাতীয় পার্টির মো. মিজানুর রহমানের মনোনয়নপত্র স্থগিত রাখা হয়েছে।

জয়পুরহাট : দুটি আসনে তিন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। তারা হলেন-জয়পুরহাট-১ রানী রাবেয়া আসরী ও মোছা. আলেয়া বেগম এবং জয়পুরহাট-২ মো. আতোয়ার হোসেন।

মানিকগঞ্জ : তিনটি আসনে জাতীয় পার্টির চার প্রার্থীসহ ১২ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন-মানিকগঞ্জ-১ জাতীয় পার্টির জহিরুল আলম রুবেল, হাসান সাঈদ, জাতীয় পার্টির (জেপি) মো. আফজাল, বিএনএম মোনায়েম খান, গণফ্রন্টের মোহাম্মদ শাহজাহান খান। মানিকগঞ্জ-২ জাতীয় পার্টির এসএম আব্দুল মান্নান, তৃণমূল বিএনপির মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, স্বতন্ত্র সাহাবুদ্দিন আহমেদ ও আওয়ামী লীগের বিকল্প প্রার্থী মো. সারোয়ার আলম। মানিকগঞ্জ-৩ জাতীয় পার্টির মোহা. জহিরুল আলম রুবেল ও বাংলাদেশ কংগ্রেসের মোছা. সাবিনা বেগম।

ফরিদপুর : দুজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ফরিদপুর-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহমুদা বেগম কৃক ও আরিফুর রহমান দোলন।

নড়াইল : দুই আসনে তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ও দুজনের স্থগিত করা হয়েছে। তারা হলেন-নড়াইল-২ আসনে বাতিল স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ ফয়জুল আমির লিটু, মো. নূর ইসলাম ও নড়াইল-১ সিকদার মো. শাহাদৎ হোসেন। স্থগিত নড়াইল-১ জাতীয় পার্টির মিল্টন মোল­া ও তৃণমূল বিএনপির শ্যামল চৌধুরী।

শরীয়তপুর : দুই আসনে দুজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন-শরীয়তপুর-১ (পালং-জাজিরা) স্বতন্ত্র গোলাম মোস্তফা ও শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া-সখিপুর) স্বতন্ত্র ডা. খালেদ শওকত আলী।

সাতীরা : দুই আসনে দুজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন-সাতীরা-১ (তালা-কলারোয়া) বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের শেখ মো. আলমগী ও সাতীরা-২ বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের আব্দুল আজিজ।

ঝিনাইদহ : একটি আসনে দুটি মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন-ঝিনাইদহ-৩ (মহেশপুর-কোটচাঁদপুর) স্বতন্ত্র প্রার্থী টিএম আজিবর রহমান ও মো. নাজিম উদ্দীন।

ভোলা : দুই আসনে দুজনের মনোনয়ন বাতিল ও একজনের স্থগিত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে বাতিল-ভোলা-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মিজানুর রহমান ও ভোলা-২ বাংলাদেশ কংগ্রেসের অ্যাডভোকেট মো. জাহাঙ্গীর আলম লিটু। এ ছাড়া স্থগিত ভোলা-২ জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান।

বাগেরহাট : দুই আসনে চারজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তাদের মধ্যে-বাগেরহাট-১ বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির কাজী রবিউল, বাগেরহাট-২ স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম আজমল হোসেন, জাতীয় পার্টির হাজরা সহিদুর ইসলাম ও তৃণমূল বিএনপির মরিয়ম সুলতানা।

নোয়াখালী : জেলার ছয়টি আসনে ১৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল ও স্থগিত করা হয়েছে সাতজনের। নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী আংশিক) বাতিল স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) সাইদ মো. তুষার ও স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) খন্দকার আর আমিন। নোয়াখালী-২ (সেনবাগ-সোনাইমুড়ী আংশিক) বাতিল বাংলাদেশ মুক্তিজোটের রবিউল হোসাইন, জাতীয় পার্টির তালেবুজ্জামান, স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) জাহাঙ্গীর হোসেন বাবর, স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) আবদুস সাত্তার, স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) মো. শিহাব উদ্দিন। স্থগিত কল্যাণ পার্টির কাজী সরওয়ার আলম। নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ) বাতিল আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ-সদস্য মো. মামুনুর রশীদ কিরণ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) জয়নাল আবদীন, স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) প্রার্থী আবুল কাশেম, স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) মো. মনিরুল ইসলাম। স্থগিত করা হয়েছে স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) প্রার্থী আক্তার হোসেন, বাংলাদেশ সাম্যবাদী দলের মহিউদ্দিন, জাতীয় পার্টির ফজলে এলাহী সোহাগ। নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) বাতিল বিকল্পধারার মেজর (অব.) আবদুল মন্নান, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) এসএম রহিম উল্যা, গণতন্ত্রী পার্টি সারওয়ার ই দীন, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের মো. জিহাদ চৌধুরী। নোয়াখালী-৫ (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট) স্থগিত বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের শাকিল মাহমুদ চৌধুরী। নোয়াখালী-৬ (হাতিয়া) বাতিল এনপিপি’র তারিকুল ইসলাম, স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ) আমিরুল ইসলাম। স্থগিত জাতীয় পার্টির মুশফিকুর রহমান।

কুমিল­া : জেলার চার আসনে ১৯ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল ও নয়জনের স্থগিত করা হয়েছে। তারা হলেন-কুমিল­া-৪ (দেবিদ্বার) বাতিল স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. ফেরদৌস আহমেদ খন্দকার। স্থগিত-জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইউসুফ আসগর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাদিয়া সাবা, বাংলাদেশ সুপ্রীম পার্টির (বিএসপি) মোহাম্মদ শফিউল বাদশা, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের আজহারুল করিম মুন্সী, গণফ্রন্টের মো. আলা উদ্দিন, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের (বিএনএফ) শাহেরা বেগম। কুমিল­া-২ (হোমনা-মেঘনা) বাতিল স্বতন্ত্র অধ্য মো. আবদুল মজিদ, স্বতন্ত্র মো. শাহআলম খন্দকার, জাতীয় পার্টির এটিএম মঞ্জুরুল ইসলাম, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক গণমুক্তিজোট সিরাজুল টম সুডেন, সুপ্রীম পার্টির মো. আবদুছ ছালাম ও খেলাফত মজলিশের সুলতান মহিউদ্দিন। স্থগিত- স্বতন্ত্র মো. সফিকুল আলম, তৃণমূল বিএনপির মইনুদ্দিন ও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের আব্দুস সালাম।

কুমিল­া-১ (দাউদকান্দি-তিতাস) বাতিল স্বতন্ত্র প্রার্থী ব্যারিস্টার নাইম হাসান, সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের ধীমন বড়ুয়া, ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা নাসির উদ্দিন, তৃণমূল বিএনপির মহসিন আলম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ সুপ্রীম পার্টির জাহাঙ্গীর আলম সরকার ও স্বতন্ত্র মো. ফারুক হোসেন আখন্দ। স্থগিত বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের মাওলানা জাকির হোসেন।

চাটমোহর (পাবনা) : পাবনা-৩ আসনে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির ধর্ম বিষয়ক সদস্য ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রবিউল করিমের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

বরিশাল : বরিশাল-১ আসনে জাকের পার্টির প্রার্থী মো. রিয়াজ মোর্শেদ জামান খানের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

 

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ:

রাজধানীর বেইলি রোডের অগ্নিকান্ডের ঘটনায় পুলিশ বাদী মামলা দায়ের। আসামি অজ্ঞাতনামা।
নিচতলার একটি দোকানের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে বেইলী রোডের আগুনের সূত্রপাত - র‌্যাব মহাপরিচালক। নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬। ৪০ জনের মরদেহ হস্তান্তর। হাসপাতালে ভর্তি ১২ জনের অবস্থা আশংকাজনক।
বেইলী রোডে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় রেস্টুরেন্টের মালিকসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
ভবন মালিকদের উদাসীনতায় এতোগুলো মানুষকে জীবন দিতে হলো- জাতীয় বিমা দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর অসন্তোষ। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে বীমা সুবিধা পায় সেদিকে নজর দেয়ার আহবান।
নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী হলেন- নওগাঁর শহীদুজ্জামান সরকার (পরিকল্পনা), রাজশাহীর আব্দুল ওয়াদুদ (পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগ), চট্টগ্রামের নজরুল ইসলাম চৌধুরী (শ্রম ও কর্মসংস্থান), সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি রোকেয়া সুলতানা (স্বাস্থ্য), শামসুন নাহার (শিক্ষা), ওয়
উত্তর টেক্সাসে এক হাজার ৭০০ বর্গ মাইল বা চার হাজার ৪০০ বর্গ কিলোমিটার বনভূমি জুড়ে দাবানল জ্বলছে। টেক্সাসের ইতিহাসে এটিই সবচেয়ে বড় দাবানল।
পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের নতুন স্পিকার আয়াজ সাদিক।
কুমিল্ল­া ভিক্টোরিয়ানসকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিপিএলের শিরোপা জিতলো ফরচুন বরিশাল।