ঢাকা,  বৃহস্পতিবার  ১৩ জুন ২০২৪

নিউজ জার্নাল ২৪ :: News Journal 24

শামসের মুক্তি দাবি করেছে বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন (আরএসএফ)

নিউজ জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশিত: ০০:৪৭, ৩১ মার্চ ২০২৩

শামসের মুক্তি দাবি করেছে বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন (আরএসএফ)

ছবি সংগৃহীত

প্রথম আলোর সাংবাদিক শামসুজ্জামান শামসের অবিলম্বে মুক্তি দাবি করেছে বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ)। প্যারিসভিত্তিক সংগঠনটি বাংলাদেশে সংবাদমাধ্যমের ওপর সরকারের কর্তৃত্ববাদী প্রভাব বন্ধের দাবিও জানিয়েছে।  

আজ বৃহস্পতিবার আরএসএফের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় দৈনিক প্রথম আলোর প্রতিবেদক শামসুজ্জামানকে ২৯ মার্চ ভোর ৪টার দিকে ৮ জন পুলিশ সদস্য রাজধানী ঢাকার উপকণ্ঠের বাসা থেকে তুলে নেয়। এ সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত শামসুজ্জামানের একজন স্বজন জানিয়েছেন, পুলিশ সদস্যরা শামসুজ্জামানের সঙ্গে তাঁর ল্যাপটপ, কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক ও দুটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়।

আটকের সময় পুলিশ সদস্যরা কোনো গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখাননি। তবে কয়েক ঘণ্টা পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শামসুজ্জামানের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা হওয়ার কথা জানান। আজ তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে মধ্যরাতে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমানের বিরুদ্ধেও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়েছে।

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের এশিয়া–প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলবিষয়ক ডেস্কের প্রধান ড্যানিয়েল বাস্টার্ড বলেছেন, ‘শামসুজ্জামান শামসকে গ্রেপ্তার এবং মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে মামলার কোনো আইনি ভিত্তি নেই। এটা স্পষ্টত সম্পূর্ণরূপে সাংবাদিকদের ভয় দেখাতে সরকারের একটি পদক্ষেপ। আমরা এই মুহূর্তে তাঁদের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। পাশাপাশি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এক বছরের আগে আমরা সরকারের প্রতি বহুমাত্রিক ও স্বাধীন সাংবাদিকতার প্রতি সম্মান দেখানোর আহ্বান জানাচ্ছি। অন্যথায় এই নির্বাচনের “গণতান্ত্রিক গ্রহণযোগ্যতার” ঘাটতি দেখা দেবে।’

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ২৬ মার্চ প্রথম আলোয় প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সদস্যদের বক্তব্য উঠে আসে। সেটা প্রথম আলোর ফেসবুক পেজেও পোস্ট করা হয়। তবে সেখানে এক ব্যক্তির বক্তব্য তুলে ধরা হলেও আরেকজনের ছবি দেওয়া হয়, যার কথাও ওই প্রতিবেদনে রয়েছে। 

ফেসবুক পোস্টে একজনের বক্তব্য এবং আরেকজনের ছবি ব্যবহারের বিষয়টিকে লুফে নেন ক্ষমতাসীন দলের সমর্থক একজন ব্লগার এবং তিনি এক ফেসবুক পোস্টে প্রতিবেদক শামসুজ্জামানের বিরুদ্ধে ‘সরকারকে বেকায়দায়’ ফেলতে সাজানো প্রতিবেদন করার অভিযোগ তোলেন। যদিও প্রথম আলো দ্রুত সংশোধনী ও ছবির বিষয়ে ব্যাখ্যা দেয়, তারপরেও একাত্তর টিভি (ধারাবাহিকভাবে সরকারপন্থী প্রচারের উৎস হিসেবে ভূমিকা রাখে) প্রথম আলোর এই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে আরকেটি প্রতিবেদন তৈরি করে এবং তারা শামসুজ্জামানের বিরুদ্ধে বেপরোয়া অপপ্রচার শুরু করে। এরপরই শামসকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

আরএসএফের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এর দুই সপ্তাহ আগে গত ১৭ মার্চ আল জাজিরার হয়ে কাজ করা বাংলাদেশি সাংবাদিক জুলকারনাইন সায়েরের ভাই মাহিনুরের ওপর হামলা ও হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। ঢাকার অভন্তর মিরপুরে ৪ জন লোহার রড দিয়ে মাহিনুরকে পিটিয়ে আহত করে। 

লোহার রড দিয়ে পেটানোর সময় হামলাকারীরা বলতে থাকে, ‘তোর ভাই সাংবাদিক না? প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে, সরকারের বিরুদ্ধে লেখালেখি করে! এবার দেখ।’ তাঁরা হামলার ভিডিও ধারণ করে এবং জুলকারনাইনের নামও সেখানে শোনা গেছে।   

সাংবাদিক জুলকারনাইন সায়ের দুই বছর আগে হত্যার হুমকি পাওয়ার পর দেশ ছেড়ে যুক্তরাজ্যে আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি আরএসএফকে জানিয়েছেন, মাহিনুরের ওপর ১৭ মার্চ হামলার পর থেকে বাংলাদেশে পরিবারটি আতঙ্কে রয়েছে। মাহিনুর তাঁর ছেলেকে স্কুলে পাঠানোর সাহসও পাচ্ছেন না।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন