ঢাকা,  বৃহস্পতিবার  ১৩ জুন ২০২৪

নিউজ জার্নাল ২৪ :: News Journal 24

বাটলারের ঝড়ো সেঞ্চুরিতে কলকাতার হার

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৩২, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

বাটলারের ঝড়ো সেঞ্চুরিতে কলকাতার হার

রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে ৫৬ বলে ১৩ চার ও ৬ ছক্কায় ১০৯ রানের ইনিংস খেলেছেন নারিন। টি-টোয়েন্টিতে ৫০৪তম ম্যাচে এসে ব্যাট হাতে তিন অঙ্কের ছোঁয়া পেলেন এই ক্যারিবীয় ব্যাটার। তার ঝড়ো সেঞ্চুরিতে ভর করেই রাজস্থানকে ২২৪ রানের বিশাল লক্ষ্য দিয়েছিল কলকাতা।

বড় লক্ষ্যে খেলতে নেমে ভালো শুরু না পেলেও রাজস্থানকে একাই টেনেছেন জস বাটলার। তিনি একপ্রান্ত আগলে রেখে ৫৫ বলে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। আর তাতেই রাজস্থান জয় পেয়েছে ২ উইকেটে। দলটির হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪ রানের ইনিংস খেলেছেন রায়ান পরাগ। আর ২৬ রান এসেছে রভম্যান পাওয়েলের ব্যাট থেকে। বাটলার শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৬০ বলে ১০৭ রানের ইনিংস খেলে। তার ইনিংস জুড়ে ৬টি ছক্কার সঙ্গে ছিল ৯টি চারের মারও। কলকাতার হয়ে দুটি করে উইকেট নেন হার্শিত রানা, সুনীল নারিন ও বরুণ চক্রবর্তী। একটি উইকেট নিয়েছেন ভাইভাব আরোরা।

জয়ের সমীকরণ সহজ ছিল না রাজস্থানের। শেষ ১২ বলে তাদের প্রয়োজন ছিল ২৮ রান। রানার করা ১৯তম ওভারে দুই ছক্কা আর এক চারে বাটলার নেন ১৯ রান। তাতেই ম্যাচ হাতের মুঠোয় চলে আসে রাজস্থানের। অবশ্য জয় পেতে শেষ বল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে রাজস্থানকে। প্রথম বলে বরুণকে ছক্কা মারলেও পরের তিন বলে ডট দিয়ে ম্যাচ জমিয়ে দিয়েছিলেন কলকাতার এই স্পিনার। তবে পঞ্চম বলে দুই আর শেষ বলে ১ রান নিয়ে জয় নিশ্চিত করেন বাটলার। এই জয়ের ফলে আইপিএলের পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষস্থান জোরালো করেছে সাঞ্জু স্যামসনের দল।

এদিন আগে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ২১ রানেই কলকাতা হারায় ওপেনার ফিল সল্টের উইকেট। মাত্র ১০ রান করে আউট হয়ে যান সল্ট। এরপর আংক্রিস রাঘুবানসিকে নিয়ে ৮৫ রান যোগ করেন নারিন। রাঘুবানসি আউট হয়ে যান ৩০ রান করে। অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার আউট হয়ে যান ২১ রান করেই। এরপর আন্দ্রে রাসেলকে নিয়ে আরেকটি পঞ্চাশোর্ধ রানের জুটি গড়েন নারিন। যদিও ১৩ রান করে সেই জুটিতে অবদান রাখেন রাসেল। বাকি সব রানই এসেছেন নারিনের ব্যাট থেকে।

সেঞ্চুরির পর নারিন ফিরে গেলে শেষদিকে এসে কলকাতার ইনিংস টেনেছেন রিঙ্কু সিং। তিনি শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৯ বলে ২০ রানের ইনিংস খেলে। রাজস্থানের হয়ে সর্বোচ্চ দুটি করে উইকেট নেন আভেষ খান ও কুলদীপ সেন। একটি করে উইকেট পান ট্রেন্ট বোল্ট ও যুবেন্দ্র চাহাল।

 

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন