ঢাকা,  সোমবার  ২২ জুলাই ২০২৪

নিউজ জার্নাল ২৪ :: News Journal 24

হস্তশিল্প রপ্তানিতে ১৫ শতাংশ নগদ সহায়তা দাবি

নিউজ জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশিত: ০০:১১, ৪ জুলাই ২০২৪

হস্তশিল্প রপ্তানিতে ১৫ শতাংশ নগদ সহায়তা দাবি

ছবি সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত হস্তশিল্প পণ্যবর্ষ ২০২৪-এ, এই খাতে রপ্তানির বিপরীতে নগদ সহায়তা ১৫ শতাংশ করার আবেদন জানিয়েছে বাংলাদেশ হস্তশিল্প প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বাংলাক্রাফট)। বুধবার (২ জুলাই) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে এই দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বাংলাক্রাফটের সভাপতি এস. ইউ. হায়দার বলেন, ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত বাংলাক্রাফট সংগঠনটি গ্রাম্য নারীদের ক্ষমতায়ন ও জীবনমান উন্নয়নের প্রধানতম একটি সম্ভাবনাময় সেক্টর হিসেবে ২০০৪ সাল থেকে হস্তশিল্পজাত পণ্য রপ্তানির বিপরীতে নগদ সহায়তা পেয়ে আসছে। ফলশ্রুতিতে এ সেক্টরটি কিছুটা মাথাতুলে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করে অপ্রত্যাশিতভাবে বিগত দুই অর্থবছরে সহায়তার হার ২০ শতাংশ থেকে ৮ শতাংশে এ নামিয়ে আনা হয়। যা দেশের ঐতিহ্যবাহী এই শিল্পকে সম্পূর্ণ ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয়ার শামিল। দেশের মাটি ও মানুষ তথা নারীদের এই শিল্পকে বিলুপ্তির হাত থেকে বাঁচাতে এবং এই খাতে নিয়োজিত লক্ষ লক্ষ কারুশিল্পীদের কথা বিবেচনা করে নগদ সহায়তা কমপক্ষে ১৫ শতাংশ করার জোর দাবি জানাচ্ছি আমরা।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, ২০৪১ সালের মধ্যে গ্রামকে শহরে উন্নীত করে স্মার্ট ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার যে স্বপ্ন প্রধানমন্ত্রী সমগ্র জাতিকে দেখাচ্ছেন, তা পূরণ করার ক্ষেত্রে হস্তশিল্প অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। এমন কি এই খাতে উন্নয়নের ফলে এসডিজি অর্জন ও পরিবেশ সুরক্ষায় বাংলাদেশ একটি রোল মডেল হতে পারে। কারণ এই শিল্পের উৎপাদন প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে পণ্য পর্যন্ত শতভাগ পরিবেশবান্ধব। এছাড়া এ খাত থেকে উপার্জিত রপ্তানি আয়ের অধিকাংশের সুবিধাভোগী হচ্ছে গ্রাম পর্যায়ের নারী। এটি সরাসরি আমাদের এসডিজি লক্ষ্যমাত্রার সঙ্গে জড়িত। 

২০২২ সালে বিশ্বব্যাপী হস্তশিল্পের বাজারের পরিমাণ ছিলো আনুমানিক ৭৫২ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার। আশা করা হচ্ছে, আগামী ২০২৩-২৮ সালের মধ্যে এর পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় ১২৯৬ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারে।

 

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন